Download WordPress Themes, Happy Birthday Wishes

বাংলাদেশে এলো সুপার ক্যামেরার স্মার্ট ফোন হুয়াওয়ের পি৩০ প্রো!

বিশ্বব্যাপী সাড়া জাগানো ফোনটির বাংলাদেশে গত ৩ এপ্রিল থেকে প্রি-বুকিং শুরু হয়। কিন্তু প্রি-বুকিং শুরুর মাত্র কয়েক ঘণ্টার মধ্যে এর স্টক শেষ হয়ে যায়।

তারপর ১১ এপ্রিল থেকে পি৩০ সিরিজের অন্য দুটি স্মার্টফোন পি৩০ ও পি৩০ লাইট পাওয়া গেলেও আজ (১৮ এপ্রিল) থেকে সারাদেশে পি৩০ প্রো পাওয়া যাচ্ছে। গ্রাহকের চাহিদার কথা বিবেচনা করেই দুর্দান্ত ক্যামেরা ও দৃষ্টিনন্দন ডিজাইনের ফোনটি আবার দেশের বাজারে নিয়ে আসলো হুয়াওয়ে।

‘পি ফর ফটোগ্রাফি’ এমন স্লোগানকে সামনে রেখে স্মার্টফোন ফটোগ্রাফি নিয়ে গ্রাহকদের চমকে দিয়েছে পি৩০ সিরিজ। মোবাইল ফটোগ্রাফির ক্ষেত্রে র‌্যাংকিং প্রকাশ করা ডিএক্সওমার্ক এর র‌্যাংকিংয়ে ইতিমধ্যে পি৩০ প্রো সবার শীর্ষে জায়গা করে নিয়েছে।

দুর্দান্ত ছবি ও ভিডিওগ্রাফির জন্য রয়েছে অবিশ্বাস্য জুমিংসুবিধা। নতুন পেরিস্কোপ ডিজাইন এবং সুপারজুম লেন্স এর সাহায্যে ৫ গুণ অপটিক্যাল জুম, ১০ গুণ হাইব্রিড জুম, ৫০ গুণ ডিজিটাল জুম পওয়া যাবে। অল্প আলোতেও ছবি ও ভিডিও ধারণ করার সুবিধা তো রয়েছেই।

পি৩০ প্রো ফোনটির পিছন দিকেই থাকছে চার চারটি ক্যামেরা সেন্সর। প্রথমটি ৪০ মেগাপিক্সেলের সুপার স্প্রেক্ট্রাম f/1.6 এপারচার এর ওয়াইড এঙ্গেল লেন্স (ওআইএস), দ্বিতীয়টি ২০ মেগাপিক্সেল f/2.2 এপারচার এর আলট্রা ওয়াইড লেন্স, তৃতীয়টি হলো ওআইএস যুক্ত ৮ মেগাপিক্সেল এর পেরিস্কোপ ক্যামেরা যার সাহায্যে ৫ গুন অপটিক্যাল জুম এবং ৫০ গুন পর্যন্ত ডিজিটাল জুম করা যাবে। আর এর চতুর্থ ক্যামেরাটি হলো টাইম অব ফ্লাইট সেন্সর যা মূলত ডেপথ ম্যাপিং করবে। ৬.৪৭ ইঞ্চির কার্ভড ওলেড ডিসপ্লের ফোনটিতে থাকছে ওয়াটারড্রপ নচ। এর রেজ্যুলেশন ফুল এইচডি প্লাস।

এতে একটি ৩২ মেগাপিক্সেলের সেলফি ক্যামেরা সংযুক্ত করা হয়েছে। হুয়াওয়ের নিজস্ব চিপ কিরিন ৯৮০ ফোনটির ব্রেইন হিসেবে ব্যবহৃত হয়েছে। চিপটিতে দুটি নিউরাল প্রসেসিং ইউনিট আছে যা আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স এ সহায়তা করবে। ৮ জিবি র‍্যাম এর সাথে ১২৮, ২৫৬ ও ৫১২ জিবি পর্যন্ত স্টোরেজ সুবিধায় এটি পাওয়া যাবে। চাইলে হুয়াওয়ে এর নিজস্ব ডিজাইনের ন্যানো মেমোরি ব্যবহার করে স্টোরেজ বাড়ানোও যাবে।

আইপি ৬৮ রেটেড ফোনটিতে ব্লুটুথ ৫.০, ফোরজি, ওয়ারলেস চার্জিং, রিভার্স ওয়ারলেস চার্জিং, এনএফসি ইত্যাদি প্রযুক্তি থাকছে। টাইপ সি পোর্ট থাকলেও থাকছে না কোন ৩.৫ মিমি পোর্ট। ফোনটিকে পাওয়ার দিচ্ছে ৪২০০ মিলিএম্পিয়ার এর একটি ব্যাটারি যা ৪০ ওয়াট সুপারচার্জ প্রযুক্তি সমর্থন করে।

অন্যদিকে, হুয়াওয়ে পি৩০ ফোনটি তুলনামূলক ছোট আকৃতির। এতে থাকছে ৬.১ ইঞ্চির ডিসপ্লে যা আগেরটির মতো কার্ভড নয় এবং পাওয়া যাবে ৮ জিবি র‍্যাম ও ১২৮ জিবি স্টোরেজ অপশন নিয়ে। এর আলট্রাওয়াইড লেন্স এর রেজ্যুলেশন কমিয়ে ১৬ মেগাপিক্সেল করা হয়েছে আর এর পেরিস্কোপ ক্যামেরাতে ৩০ গুন পর্যন্ত জুম করা যাবে। পাশাপাশি এতে থাকছে না কোন টাইম অব ফ্লাইট সেন্সর। সবদিক থেকে কাটছাঁট করায় এর ব্যাটারিও একটু কমিয়ে ৩৬৫০ মিলিএম্প এ নিয়ে আসা হয়েছে। এতে ২৫ ওয়াট এর সুপারচার্জ প্রযুক্তি থাকলেও রিভার্স ওয়ারলেস চার্জিং থাকছে না। তবে উপরি পাওনা হিসেবে পি৩০ তে হেডফোন জ্যাক পাচ্ছেন, যা প্রো ভার্সনে নেই। পি৩০ ফোনটি আইপি ৫৩ রেটেড।

বাংলাদেশের বাজারে পি৩০ প্রো স্মার্টফোনটির দাম পড়বে ৮৯ হাজার ৯৯৯ টাকা। এছাড়া পি৩০ ও পি৩০ লাইট স্মার্টফোন দু’টির দাম পড়বে যথাক্রমে ৬৪ হাজার ৯৯৯ ও ২৯ হাজার ৯৯৯ টাকা। এই তিনটি মডেলের স্মার্টফোন আজ থেকে হুয়াওয়ের অনুমোদিত সকল ব্র্যান্ডশপে পাওয়া যাবে।